ঢাকা রবিবার, ৯ই আগস্ট ২০২০, ২৬শে শ্রাবণ ১৪২৭


করোনা ভাইরাস

হারিয়ে যাচ্ছে ঐতিহ্যবাহী বাঁশ ও বেত শিল্প


প্রকাশিত:
২৮ জুন ২০২০ ১৪:২৬

আপডেট:
৯ আগস্ট ২০২০ ২০:২৭

নিউজ ডেস্ক : বাঁশ আর বেতকেই জীবিকার প্রধান বাহক হিসাবে আঁকড়ে রেখেছে চাঁদপুর জেলার কচুয়া উপজেলার গুটি কয়েক মানুষ। এই বাঁশ আর বেতই বর্তমানে তাদের জীবিকার প্রধান বাহক। কিন্তু দিন দিন বাঁশ আর বেতের তৈরি বিভিন্ন পন্যের চাহিদা কমে যাওয়ায় ভালো নেই এই শিল্পের সঙ্গে জড়িত গুটি কয়েক কারিগররা। বর্তমানে করোনা ভাইরাসে সংক্রমণ ও লকডাউনের কারণে দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে এসব বাঁশ শিল্প আনা সম্ভব হচ্ছে না। এতে করে নিপুন কারিগররা কর্মহীন হয়ে পড়ছে।

তবে কালের আর্বতনের সাথে সাথে বিশেষ বাঁশ শিল্প আর চোখে পড়ে না। একদিকে করোনা ভাইরাস সংক্রমন ও অপরদিকে অপ্রতুল ব্যবহার আর বাঁশের মূল্য বৃদ্ধি পাওয়ার কারণে বাঁশ শিল্প আজ হুমকির মুখে। বর্তমানে কচুয়া উপজেলার ১৫টি স্থানে এসব বাঁশ শিল্পের দোকার রয়েছে।

এদিকে পালাখাল ওবায়েদুল সিলিং হাউজের পরিচালক ওবায়েদুল হোসেন ও অন্যান্য কারিগররা জানান, এই বাঁশ শিল্প দিয়ে জাবার, ওরা, ছাই, সিলিং, ছালুন, ডিজিটাল সিলিংসহ বিভিন্ন ধরনের জিনিসপত্র বানানো হয়। তবে বর্তমানে বাঁশ শিল্প এখন বিলুপ্তির পথে। বর্তমানে করোনা ভাইরাসের কারণে তাদের জীবন জীবিকা দুর্বিসহ হয়ে গেছে।

তাই করোনা ভাইরাসের কারণে এক দিকে যেমন পন্য আমদানি করতে পারছে না অপর দিকে সামগ্রিকভাবে কোনো অর্ডার পাচ্ছে না তারা। এতে করে কারিগররা নিজেদের জীবন জীবিকা পালনে হিমসিম খাচ্ছে। সরকারের পৃষ্ঠপোষকতা পেলে এসব বাঁশ শিল্প উজ্জীবিত করা সম্ভব হবে বলে জানান কারিগররা।

বাংলাদেশের আরোও বেশ কিছু অঞ্চলে এই বাঁশ ও বেত শিল্পের দেখা মিললেও, বর্তমানে অধিকাংশই বিলুপ্তির পথে। এই ঐতিহ্যবাহী শিল্পকে বাঁচিয়ে রাখতে হলে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষসহ সকলের সজাগ দৃষ্টি প্রয়োজন।



আপনার মূল্যবান মতামত দিন: