ঢাকা শনিবার, ১৯শে জুন ২০২১, ৬ই আষাঢ় ১৪২৮


মসজিদে ঢুকে ইতেকাফে থাকা ব্যক্তিকে ছুরিকাঘাত


প্রকাশিত:
১০ মে ২০২১ ২০:২১

আপডেট:
১৯ জুন ২০২১ ০৬:৫৪

নিউজ ডেস্কঃ নোয়াখালীর সদর উপজেলায় পূর্বশত্রুতার জেরে মসজিদে ঢুকে এক ব্যক্তিকে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাতে জখম করার অভিযোগে এলাকাবাসী একজনকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে।

আহত ব্যক্তির নাম মো. আবদুল কাদের রহমান (৪২)। তিনি নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (নোবিপ্রবি) সহকারী রেজিস্ট্রার এবং নোয়াখালী পৌরসভার ৪ নম্বর ওয়ার্ডের রশীদ কলোনীর রতন মিয়ার ছেলে।

সোমবার (১০ মে) দুপুর ১টা ৩০ মিনিটের দিকে উপজেলার নোয়াখালী পৌরসভার ৪ নম্বর ওয়ার্ডের রশিদ কলোনীর মুন্সি দিঘীর পাড় জামে মসজিদে এ ঘটনা ঘটে।

পরে স্থানীয়রা তাকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেন। তবে সুনির্দিষ্টভাবে এখন পর্যন্ত এ হামলার কোনো কারণ জানা যায়নি।

এ ঘটনায় ইউছুফ আলী ওরফে ভান্ডারী (৬০) নামের একজনকে আটক করে পুলিশ সোপর্দ করেছে জনতা। তিনি একই এলাকার হাজী বাড়ির মৃত বাদশা মিয়ার ছেলে।

হামলার শিকার আবদুল কাদেরের ছোটভাই আনোয়ার হোসেন জানান, তার বড়ভাই রশিদ কলোনীর মুন্সি দিঘীর পাড় জামে মসজিদে ইতেকাফে অংশগ্রহণ করেন। গত সাতদিন ধরে তিনি মসজিদে অবস্থান করছেন। সোমবার জোহরের নামাজের সময় তিনি নামাজের কাতারে দাঁড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে ইউছুফ আলী তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত করেন। পরে পালিয়ে যাওয়ার সময় এলাকাবাসী তাকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে।

তিনি আরও বলেন, ‘ইউছুফ আলী ভান্ডারীর রশিদ কলোনী এলাকায় একটি বড় গরুর খামার ছিল। ওই খামারের কারণে পরিবেশ দূষণ হওয়ায় এলাকাবাসী বিভিন্ন অধিদফতরে লিখিত অভিযোগ দেয়। ওই অভিযোগপত্রে আমার ভাই আবদুল কাদের রহমানও একাত্মতা প্রকাশ করে স্বাক্ষর করেন। এ ঘটনার জের ধরে তিনি আমার ভাইকে ছুরিকাঘাত করেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।’

এ বিষয়ে সুধারাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সাহেদ উদ্দিন জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় একজনকে আটক করা হয়েছে। হামলার ঘটনায় লিখিত অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।



আপনার মূল্যবান মতামত দিন: