ঢাকা রবিবার, ২৭শে সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২ই আশ্বিন ১৪২৭


হার্ড ইমিউনিটি'র কারণে করোনা সংক্রমণ কমছে?


প্রকাশিত:
১৩ সেপ্টেম্বর ২০২০ ১২:০৬

আপডেট:
২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ ০২:৪০

নিউজ ডেস্কঃ সবচেয়ে বেশি করোনাভাইরাস সংক্রমিত হয়েছে যুক্তরাষ্ট্র, ভারত ও ব্রাজিলে। এর মধ্যে ব্রাজিলের মানাউস শহরে করোনার ছোবল ছিল ভয়াবহ। তবে 'ওয়াশিংটন পোস্টে'র এক খবরে বলা হয়েছে, সেখানে স্বয়ংক্রিয়ভাবেই করোনা সংক্রমণ ও মৃত্যুর হার কমতে শুরু করেছে।

মানাউস শহর শুরু থেকেই লকডাউনের পথে যায়নি। এমনকি করোনা প্রতিরোধে স্বাস্থ্যবিধিও খুব একটা মেনে চলেনি সেখানকার নাগরিকরা। মাস্কও পরতে দেখা যায়নি অনেককে। এই অবস্থায় করোনার প্রাথমিক থাবাও ছিল প্রবল।

কিন্তু এখন পরিসংখ্যান দেখে আশান্বিত হচ্ছে মানুষ। শহরটিতে গত মে মাসে করোনায় আক্রান্ত হয়ে ১ হাজার ৩০০ জনের বেশি ব্যক্তি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। এই সংখ্যাটাই আগস্ট মাসে নেমে এসেছে ৩০০ জনের আশপাশে। ইতালির মিলান বা যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কেও এমনটাই লক্ষ্য করা গেছে।

মানাউসের জীবনযাত্রা প্রায় স্বাভাবিক ছন্দে ফিরে এসেছে। স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের মতে, শহরের ২০ শতাংশেরও কম এলাকায় এখন করোনা সংক্রমণ রয়েছে। এর পেছনে 'হার্ড ইমিউনিটি'র ভূমিকা রয়েছে বলে মনে করছেন চিকিৎসা বিজ্ঞানীদের একটি অংশ। তারা বলছেন, হার্ড ইমিউনিটি পেতে হলে একটি নির্দিষ্ট এলাকার অন্তত ৭০ শতাংশ লোককে সংক্রামিত হতে হবে।

তবে বিশেষজ্ঞদের কারও কারও মতে, এই হিসাব সবক্ষেত্রে সমানভাবে কার্যকর না-ও হতে পারে। কারণ সবাই এই ভাইরাসে সমানভাবে আক্রান্ত হবেন, তেমন না। যারা ইতিমধ্যেই সংক্রমণ ছড়িয়েছেন ও সংক্রামিত হয়েছেন, তাদের ইমিউনিটি তৈরি হয়ে গেছে। ফলে করোনা প্রকোপ কোথাও কোথাও ধীরে ধীরে কমছে। অন্যসব এলাকায়ও কমবে।

সূত্র: ইন্ডিয়া টাইমস



আপনার মূল্যবান মতামত দিন: