ঢাকা বুধবার, ২৮শে অক্টোবর ২০২০, ১৪ই কার্তিক ১৪২৭


পরবর্তী মার্কিন প্রেসিডেন্ট ইরানে ‘আত্মসমর্পণ’ করবেন


প্রকাশিত:
২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০ ১৭:২০

আপডেট:
২৮ অক্টোবর ২০২০ ১৩:৫৮

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : যুক্তরাষ্ট্রের পরবর্তী প্রেসিডেন্ট ইরানের দাবির কাছে নতিস্বীকার করতে বাধ্য হবেন বলে মন্তব্য করেছেন প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি। জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের বার্ষিক অধিবেশনে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে দেওয়া ভাষণে ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি এমন মন্তব্য করেছেন।

 

গতকাল মঙ্গলবার রাতে দেওয়া ভাষণে বলেন, আমেরিকার প্রেসিডেন্ট নির্বাচন কিংবা দেশটির অভ্যন্তরীণ রাজনীতিতে ব্যবহার করার মতো কোনো বিষয় আমরা নই। তবে আগামী মার্কিন নির্বাচনের মাধ্যমে দেশটির ক্ষমতায় যে সরকারই আসুক না কেন, ইরানের জনগণের দাবির কাছে আত্মসমর্পণ করতে বাধ্য হবে তারা।

 

প্রসঙ্গত, ইরানের সঙ্গে বিশ্বের ছয় জাতি-গোষ্ঠীর করা পরমাণু সমঝোতা থেকে ২০১৮ সালের মে মাসে একতরফাভাবে বেরিয়ে যান বর্তমান মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তবে আগামী ৩ নভেম্বরের মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ট্রাম্পের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী জো বাইডেন প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন যে, তিনি প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হলে ইরানের সঙ্গে পরমাণু সমঝোতায় ফির আসবেন।

 

উল্লেখ্য যে, ২০১৫ সালে যখন ওই সমঝোতা স্বাক্ষর হয় তখন আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ছিলেন বারাক ওবামা। এবং সে সময় আমেরিকার ভাইস-প্রেসিডেন্ট ছিলেন এই জো বাইডেন।

 

ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি বলেন, ইরান তার স্বাধীনচেতা মনোভাব ও সাম্রাজ্যবাদের তাঁবেদারি থেকে মুক্ত থাকার জন্য বিগত কয়েক দশক ধরে প্রচেষ্টা করে আসছে। আর এ জন্য ইরানের জনগণকে চরম মূল্য দিতে হয়েছে। কিন্তু আধিপত্যবাদী শক্তির কাছে আত্মসর্পণ না করে প্রতিরোধ গড়ে তুলে এগিয়ে যাচ্ছে ইরান।

 

তিনি আরো বলেন, নিষেধাজ্ঞার কারণে ইরানের জনগণের কষ্ট হচ্ছে ঠিকই। কিন্তু সেই কষ্টের চেয়ে স্বাধীনতা ও তাঁবেদারি মুক্ত জীবন অনেক শ্রেয়। আর ইরানের জনগণ সেটাকেই বেছে নিয়েছে। কাজেই কথিত সর্বোচ্চ চাপের (ট্রাম্প প্রশাসনের) মুখে নতিস্বীকার করবে না তার দেশ।

 

জাতিসংঘে দেওয়া ভাষণে মধ্যপ্রাচ্যে শান্তি, স্থিতিশীলতা ও নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠায় তার দেশ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে বলেও উল্লেখ করেন প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি।



আপনার মূল্যবান মতামত দিন: