ঢাকা রবিবার, ৯ই আগস্ট ২০২০, ২৬শে শ্রাবণ ১৪২৭


বাংলাদেশ-ভারতের সম্পর্ক নষ্ট করার চেষ্টা, ‘দ্য ইস্টার্ন লিংক’


প্রকাশিত:
৩১ জুলাই ২০২০ ২০:৪০

আপডেট:
৯ আগস্ট ২০২০ ২০:০৩

ফাইল ছবি

নিউজ ডেস্কঃ বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ককে ক্ষতিগ্রস্ত করার মরিয়া চেষ্টায় যেভাবে ইদানীং আদাজল খেয়ে নেমেছে, তাতে আচমকাই এটি বাংলাদেশ বা ভারতে এক ধরনের নেতিবাচক প্রচার পেয়ে গেছে বলা চলে। এই পোর্টালটির নেপথ্যে আছেন কলকাতাভিত্তিক সুবীর ভৌমিক, যাকে অনেকে ‘ভাড়াটে সাংবাদিক’ বলেও মনে করে থাকেন। সাড়ে চার মাস বয়সী এই পোর্টালটি তাদের ওয়েবসাইটে নিজেদের পরিচিতি দিয়েছে এভাবে- ‘আমাদের ফোকাস হলো এশিয়ার একটি গুরুত্বপূর্ণ লিংক অঞ্চল, পূর্ব ও উত্তর-পূর্ব ভারত, বাংলাদেশ ও মিয়ানমার।’

আর বাংলাদেশ ও ভারতের যে সাংবাদিকরা এই পোর্টালে লেখেন তাদেরও কেউ প্রায় চেনেন না বললেই চলে। অনেকের সন্দেহ এই পোর্টালের বেশিরভাগ নিবন্ধ আসলে সুবীর ভৌমিক বকলমে নিজেই লেখেন। সুবীর ভৌমিক তার সাংবাদিকতার প্রথম জীবনে কলকাতার আনন্দবাজার পত্রিকার আগরতলা প্রতিনিধি ছিলেন। উত্তর-পূর্ব ভারতের নানা বিষয় তখন থেকেই কাভার করে আসছেন তিনি।

সেই সময়েই উত্তর-পূর্ব ভারতের বিভিন্ন বিচ্ছিন্নতাবাদী গোষ্ঠীর মধ্যে তার ‘কনট্যাক্ট’ গড়ে ওঠে। আসামের উলফা প্রধান পরেশ বড়ুয়া বা ‘পিবি’ তাকে কীভাবে বিদেশ থেকে রাত-বিরাতে ফোন করে ঘুম ভাঙাতেন, সে বর্ণনাও তিনি নিজে অনেক লেখাতেই দিয়েছেন। পরে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম বিবিসিতে উত্তর-পূর্ব ভারতের সংবাদদাতা হিসেবে যোগ দেন সুবীর ভৌমিক। বিবিসি থেকে অবসর নেওয়ার পর তিনি বাংলাদেশের বিডিনিউজ২৪-সহ অনেক সংবাদমাধ্যমেই কাজ করেছেন, যার মধ্যে মিয়ানমারের সামরিক জান্তার ঘনিষ্ঠ ‘মিজিমা’ও রয়েছে।

ভারতের একটি চিট ফান্ড কেলেঙ্কারিতে তার নাম জড়িয়েছিল। ওই গোষ্ঠীর সংবাদপত্রে তার কী ভূমিকা ছিল সেটা নিয়ে তিনি তদন্তকারীদের জেরার মুখেও পড়েছিলেন। সুবীর ভৌমিকের এই ‘বর্ণময়’ ক্যারিয়ারের সবশেষ উদ্যোগ হলো ‘দ্য ইস্টার্ন লিংক’। এই দীর্ঘ ক্যারিয়ারে একটা অপবাদ অবশ্য সুবীর ভৌমিককে সবসময়েই বয়ে বেড়াতে হয়েছে- তিনি নিরাপত্তা বাহিনীর ‘প্ল্যান্ট’ করা বা ‘ফরমায়েশি’ স্টোরি লেখেন। তাকে বহু বছর ধরে চেনেন, এমন সাংবাদিকরা অনেকেই বাংলা ট্রিবিউনকে বলেছেন, ‘এই দুর্নামটা তার নামের সঙ্গে এমনভাবে সেঁটে গেছে যে, সে জন্যই সুবীর ভৌমিকের স্টোরিকে আজকাল আর কেউ সিরিয়াসলি নেন না!’ সম্প্রতি ফটোশপের মাধ্যমে জালিয়াতি করে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের ছবি প্রকাশের পর, তাদের অসৎ উদ্দেশ্য সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা পাওয়া যায়।

দ্য ইস্টার্ন লিংকে গত কয়েক মাসে এমন কতগুলো ‘স্টোরি’ তিনি প্রকাশ করেছেন যেগুলো এর জ্বলন্ত উদাহরণ। এই পোর্টালে এমন বহু স্টোরি বেরিয়েছে, যেগুলো পড়লেই বোঝা যায় কোনও একটি বিশেষ গোষ্ঠীর স্বার্থ হাসিল করতেই সেগুলো লেখা হয়েছে। 



আপনার মূল্যবান মতামত দিন: